তার বাঁ হাত সম্পূর্ণ বেঁকে গেছে, ডানটাও বেঁকে যাচ্ছে: সেলিমা

মানবিক দিক বিবেচনা করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি চেয়েছেন তাঁর পরিবারের সদস্যরা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার সঙ্গে গতকাল মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সাক্ষাৎ শেষে তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে এই আহ্বান করা হয়।

খালেদা জিয়ার বোন সেলিমা ইসলাম পরিবারের পক্ষে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজকে তার (খালেদা জিয়া) শরীর খুবই খারাপ। শ্বাসকষ্টে ভুগছে। একদম কথাই বলতে পারছে না। সরকারকে বলছি এটা বিবেচনা করুন। তার এই শারীরিক অবস্থা, শ্বাসকষ্ট, বয়স তাদের (সরকার) বিবেচনা করা উচিত। মানবিক দিক বিবেচনা করে তাকে মুক্তি বা জামিন দেওয়া উচিত। সরকারের কাছে আমরা তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানাচ্ছি। অন্তত উন্নত চিকিৎসা যাতে করাতে পারি সেই সুযোগটুকু দেওয়া হোক।’ সেলিমা আরও বলেন, ‘সে (খালেদা জিয়া) পাঁচ মিনিটও দাঁড়াতে পারছে না। বেড থেকে সামান্য দূরত্বের বাথরুমে যেতেও তার ২০ মিনিট সময় লেগে যাচ্ছে। বাঁ হাত সম্পূর্ণ বেঁকে গেছে। এখন ডান হাতটাও বেঁকে যাচ্ছে। সে খেতে পারছে না, খেলেই বমি হয়ে যাচ্ছে। জ্বর আছে গায়ে, শরীরে প্রচণ্ড ব্যথা। এ অবস্থায় তার উন্নত চিকিৎসা খুবই প্রয়োজন। এই মুহূর্তে উন্নত চিকিৎসা না দেওয়া গেলে তার শারীরিক অবস্থা যে কী হবে আমরা বুঝতে পারছি না।’

হাসপাতালের ভাইস চ্যান্সেলরের কাছে পরিবারের পক্ষ থেকে একটি আবেদন দেয়া হয়েছে, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সেলিমা বলেন, ‘এটা খালেদা জিয়ার মুক্তি, নিঃশর্ত মুক্তি। তাকে তো মিথ্যা একটা মামলায় সাজা দেওয়া হয়েছে। আজ দুই বছর ধরে সে অন্তরিন। তার শারীরিক অবস্থা ভালো নয়। সে যে অবস্থায় এসেছিল (কারাগারে), এখন তো সেই অবস্থায় নেই। সে আগে হেঁটে চলে বেড়াত। আর এখন তো সে পাঁচ মিনিটও দাঁড়াতে পারছে না। এখানে ডাক্তাররা যে চিকিৎসা দিচ্ছেন, তাতে কোনো উন্নতি হচ্ছে না। ডায়াবেটিস কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণে আসছে না। আজও তার ফাস্টিং সুগার ছিল ১৪-১৫।’ গতকাল বিকেল সাড়ে ৩টায় খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে যান পাঁচ স্বজন—সেজো বোন সেলিমা ইসলাম, ছোট ভাইয়ের স্ত্রী কানিজ ফাতিমা, তাঁর ছেলে অভিক এস্কান্দার, তারেক রহমানের স্ত্রীর বড় বোন শাহিনা জামান খান বিন্দু ও কোকোর শাশুড়ি ফাতিমা রেজা। প্রায় ঘণ্টাখানেক সেখানে অবস্থান করেন তাঁরা।