আইনের সংশোধন: যা জানালেন ওবায়দুল কাদের

ধর্ষণের এই বিষয়ে (আইন সংশোধন) প্রধানমন্ত্রী নিজে উদ্যোগ নিয়েছেন। আমার মনে হয়ে মানুষের মনের ভাষা প্রধানমন্ত্রী বোঝেন। এটি এখন জনদাবিতে পরিণত হয়েছে। কাজেই তাদের এই দাবিকে অবশ্যই আমরা স্বীকৃতি দেবো। এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।

সোমবার (১২ অক্টোবর) সচিবালয়ে সেতু মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশে ভারতের নতুন হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামীর সঙ্গে সাক্ষাত শেষে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সর্বোচ্চ সাজা নিশ্চিত হলে ধর্ষকদের মধ্যে একটি ভীতিও থাকবে। যেভাবে বাড়ছে নরীর প্রতি সহিংসতা ধর্ষণ বন্ধ করতে হলে এ ধরনের কঠোর আইন প্রয়োগ করতে হবে।

তিস্তা চুক্তি নিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি অত্যন্ত আন্তরিক জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, তিনি চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। দু’দেশ আলোচনা করে সমাধানে ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে। দুদেশের সরকার মধ্যে সম্পর্কে কৃত্রিম দেয়াল আর নেই। এখন সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় উন্নিত হয়েছে।

সড়ক যোগাযোগ অবকাঠামৈা নিয়ে দু’দেশের মধে আলোচনা হয়েছে। কাজ চালিয়ে যেতে আলোচনা হয়েছে বলেও জানান সরকারের এ মন্ত্রী।